পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন কোনটি?

প্রশ্ন: পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন কোনটি?

সঠিক উত্তর: সুন্দরবন

পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন কোনটি?

ম্যানগ্রোভ বন কী?

ম্যানগ্রোভ বন বলতে সমুদ্র তীরবর্তী এক বিশেষ বনাঞ্চলকে বুঝায়। অন্যান্য বন থেকে ম্যানগ্রোভ বন ভিন্ন প্রকৃতির হয়ে থাকে। ম্যানগ্রোভ বনের ভূমি সাধারণত লবণাক্ত হয়। যার কারণে সাধারণ গাছপালা এখানে জন্মাতে পারে না। বিশেষ এক ধরনের গাছ এখানে জন্মায়। পৃথিবীতে সমুদ্র তট ঘেষা অনেক ম্যানগ্রোভ বন রয়েছে। আমাদের বাংলাদেশের একটি ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল রয়েছে। সুন্দরবন একটি ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল।

পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন কোনটি?

পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন হচ্ছে সুন্দরবন। সুন্দরবনের আয়তন প্রায় দশ হাজার বর্গকিলোমিটারের কিছু বেশি। এর কিছু অংশ বাংলাদেশ অংশে পড়েছে এবং কিছু অংশ ভারতের অংশ পড়েছে। যদিও বিজ্ঞানীরা প্রমাণ পেয়েছেন যে, বহু বছর আগে সুন্দরবন আরো অনেক এলাকা নিয়ে বিস্তৃত ছিল। বর্তমানে সুন্দরবন আয়তন ক্রমান্বয়ে সংকুচিত হচ্ছে।

সুন্দরবনের মোট আয়তনের দশভাগের ছয় ভাগ রয়েছে বাংলাদেশের অংশে এবং বাকি চার ভাগ রয়েছে ভারতের অংশ। পৃথিবী বিখ্যাত এই ম্যানগ্রোভ বনটির ভেতর দিয়ে নানা নদীর শাখা ও উপশাখা প্রবাহিত হয়ে গিয়েছে। এই বনে নানা প্রকার বিরল মাছ পাওয়া যায়। সুন্দরবনের পাওয়া মধু অত্যন্ত সুস্বাদু ও জনপ্রিয়।

আরো পড়ুন

সুন্দরবনকে কেন ম্যানগ্রোভ বন বলা হয়?

সমুদ্র তট ঘেষা সুন্দরবন একটি ম্যানগ্রোভ বন। সুন্দরবনের সাধারণ গাছপালা জন্মায় না। সুন্দরবনের মাটি মূলত লবণাক্ত হয়ে থাকে। যার ফলে সাধারণ গাছপালা এখানে জন্মাতে পারে না, মাটি থেকে পুষ্টিকর উপাদান সংগ্রহ করতে পারে না। কিন্তু সুন্দরবনের যেসব গাছ রয়েছে, সেগুলো এক বিশেষ পদ্ধতিতে লবণাক্ত মাটি থেকে নিজের পুষ্টি উপাদান গ্রহণ করে। এছাড়া সুন্দরবনের গাছগুলোর মূল মাটির উপরে বের হয়ে থাকে, এই মূল দিয়ে তারা মূলত শ্বাসকার্য চালিয়ে থাকে।

সুন্দরবন পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল, যেখানে সারা বছর হাজার হাজার পর্যটক সুন্দরবন দেখতে আসে। সুন্দরবনই বিভিন্ন বিরল প্রজাতির পশু, পাখি, মাছ, গাছপালা ইত্যাদির বাসস্থান। সুন্দরবনের সবচেয়ে বিখ্যাত প্রানীটি হচ্ছে রয়েল বেঙ্গল টাইগার। এই রয়েল বেঙ্গল টাইগার বাংলাদেশের জাতীয় পশু। এছাড়া সুন্দরবন শুধু বাংলাদেশেই নয়, ভারতেরও আনেকাংশ রয়েছে। ভারতীয় অংশে প্রতিবছর হাজার হাজার পর্যটক সুন্দরবন ভ্রমণ করে থাকে।

তথ্যসূত্র উইকিপিডিয়া

Leave a comment