বাংলাদেশে জুম চাষ কোথায় হয়?

প্রশ্ন: বাংলাদেশে জুম চাষ কোথায় হয়?

সঠিক উত্তর: রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি।

বাংলাদেশে জুম চাষ কোথায় হয়?

জুম চাষ কী?

জুম চাষ মূলত একটি চাষাবাদ পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে চাষের ভূমি উর্বর করা হয়। সাধারণত পার্বত্য চট্টগ্রামে এই পদ্ধতিতে উপজাতিরা চাষাবাদ করেন। এই পদ্ধতিটি বাংলাদেশের অন্যান্য স্থানের চাষাবাদ পদ্ধতি থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন।

পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতিরা সাধারণত পাহাড়ে চাষাবাদ করে থাকেন। কেন না পার্বত্য চট্টগ্রামের সমতল কোনো জমি নেই। এসব জমিতে গাছপালা, ঘাস, লতাপাতা ইত্যাদি প্রথমে পুড়িয়ে ফেলা হয়। এরপর পাহাড়ের মাটি কেটে গাছগুলোর ছাই মাটির সাথে মেশানো হয়। এতে মাটির উর্বরতা বৃদ্ধি পায় এবং এই জমিতে চাষাবাদের উপযুক্ত হয়। জুম পদ্ধতি উপজাতিরা নিজেদের উপর ফসল উৎপাদন করে আসছে।

বাংলাদেশে জুম চাষ কোথায় হয়?

উপরেই লেখাতে আমরা জেনেছি, পার্বত্য চট্টগ্রামে উপজাতিরা জুম চাষাবাদ করে। পার্বত্য চট্টগ্রামের জেলাগুলো হচ্ছে রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান। এই তিনটি পার্বত্য জেলায় মোট এগারটি উপজাতি বসবাস করে। যাদের মধ্যে সবাই জুম চাষ করে থাকে। তবে চাকমা ও মারমা উপজাতির লোকেরা এই পদ্ধতিতে সর্বাধিক চাষাবাদ করে।

জুম চাষ করা উপজাতিদের এক আলাদা ঐতিহ্য হয়ে দাড়িয়েছে। যদিও জুম চাষ করার ফলে পরিবেশের কিছুটা ক্ষতি হতে পারে কিন্তু বর্তমানে জুম চাষের হার অনেকটা কমে গেছে। তবে জুম চাষ দেখতে হলে আপনাকে পাড়ি দিতে হবে পার্বত্য চট্টগ্রামে। এখনো অনেক উপজাতি রয়েছে যারা তাদের সংস্কৃতি নিজেদের জীবনের সাথে আগলে ধরে রেখেছে।

অনেক সময় কোন জেলায় জুম চাষ করা হয় এই প্রশ্নের অপশনে তিনটি জেলার নাম নাও থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে একটি জেলার নাম উল্লেখ থাকলে সেই অপশনটি সঠিক উত্তর হবে।

আরো পড়ুন

প্রশ্নের উৎস

এবারের প্রশ্ন, বাংলাদেশের জুম চাষ কোথায় হয়? প্রশ্নটি খুব সম্প্রতি ৪৪ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় বাংলাদেশ বিষয়াবলি অংশে এসেছিল। শুধু তাই নয়, এই প্রশ্নটি এই পর্যন্ত বিগত বিসিএস, সরকারি চাকরি নিয়োগ পরীক্ষা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ে বারবার এসেছে। উপজাতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক এই প্রশ্নটি যেকোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য অত্যন্ত কমন উপযোগী।

তথ্যসূত্র উইকিপিডিয়া

Leave a comment