পশ্চিম তিমুর এর বর্তমান মর্যাদা কি?

প্রশ্ন: পশ্চিম তিমুর এর বর্তমান মর্যাদা কি?

সঠিক উত্তর: ইন্দোনেশিয়ার একটি অঙ্গরাজ্য

পশ্চিম তিমুর এর বর্তমান মর্যাদা কি?

তিমুর

এশিয়া মহাদেশের পর্বের একটি দ্বীপ হচ্ছে তিমুর। তিমুর দ্বীপটির অবস্থান তিমুর সাগরের উত্তর তীরে ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দক্ষিণ প্রান্তে। দ্বীপটিকে দুইটি অংশে ভাগ করা যায়। পূর্ব অংশে পূর্ব তিমুর একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র। আর পশ্চিম অংশটি ইন্দোনেশিয়ার একটি অঙ্গরাজ্য হিসেবে স্বীকৃত। ইন্দোনেশিয়ান অংশটি পশ্চিম তিমুর নামেও পরিচিত। পশ্চিম তিমুর ইন্দোনেশিয়ার নুসা তেনগারা প্রদেশের অংশ।

এছাড়া পশ্চিম তিমুরের মধ্যে অবস্থিত ইস্ট টিয়ার্সের একটি জেলা রয়েছে, যা মূলত পূর্ব তিমুরের একটি ছিটমহল। তিমুর দ্বীপটির আয়তন ৩০,৭৭৭ বর্গ কিলোমিটার।

আরো পড়ুন গ্রিনপিস যাত্রা শুরু করে কবে?

তিমুর দ্বীপের নাম মালয় ভাষার টাইমুর শব্দের থেকে এসেছে। তিমুর শব্দের অর্থ হলো পূর্ব। দ্বীপটি লেসা সুন্দা দ্বীপপুঞ্জের ঠিক পূর্ব দিকে অবস্থিত। পূর্ব দিকে অবস্থান করছে বলে দ্বীপটির নাম তিমুর রাখা হয়েছে বলে ধারণা করা হয়ে থাকে।

পূর্ব তিমুর

পূর্ব তিমুর এশিয়ার নবীনতম একটি রাষ্ট্র। ২০০২ সালে এটি ইন্দোনেশিয়ার কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করে। ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত এই দ্বীপটি পর্তুগালের একটি উপনিবেশ ছিল। কিন্তু ১৯৭৫ সালে তিমুর দ্বীপটি দখল করে নেয় ইন্দোনেশিয়া।

আর সেই সময় থেকে তিমুর দ্বীপটিতে চরম সহিংসতা উত্তেজনা ও অসন্তোষ বিরাজ করে করছিল। অবশেষে ১৯৯৯ সালের জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে তিমুরে একটি গণভোট অনুষ্ঠিত হয়।

গণভোটটি ছিল মূলত পূর্ব তিমুরের স্বাধীনতার প্রশ্নে। সেই গণভোটে ৭৮.৫% ভোট স্বাধীনতার পক্ষে পড়ে এবং ইন্দোনেশিয়া প্রথম দেশ হিসেবে পূর্ব তিমুরকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

পশ্চিম তিমুর

২০০২ সালে তিমুর দ্বীপের পূর্ব অংশ স্বাধীন হয়ে গেলেও তিমুর দ্বীপের পশ্চিমাংশ পশ্চিম তিমুর ইন্দোনেশিয়ার নুসা তেংগারা প্রদেশের অংশ হয়ে যায়। অর্থ্যাৎ পশ্চিম তিমুর স্বাধীন নয়। পশ্চিম তিমুর এর বর্তমান মর্যাদা কি? প্রশ্নটির সঠিক উত্তর হচ্ছে এটি এখনো ইন্দোনেশিয়ার একটি অংশ।

প্রশ্নের উৎস

পশ্চিম তিমুর এর বর্তমান মর্যাদা কি? প্রশ্নটি ২৬ তম বিসিএসে এসেছিল। এছাড়া আন্তর্জাতিক বিষয়াবলিতে তিমুর একটি হট টপিক। সচরাচর এখান থেকে প্রশ্ন কমন পড়তে দেখা যায়। এছাড়া নন ক্যাডার চাকরির পরীক্ষাতেও পূর্ব তিমুর নিয়ে প্রশ্ন আসতে দেখা যায়।

তথ্যসূত্র উইকিপিডিয়া

Leave a comment