আসিয়ানভুক্ত দেশ মনে রাখার টেকনিক

পৃথিবীতে অনেকগুলো আঞ্চলিক সংস্থার রয়েছে। যার মধ্যে সার্কের কথা আমরা অনেকেই জানি। কিন্তু সার্কের মতো আরেকটি আঞ্চলিক সংস্থা রয়েছে, যার নাম আসিয়ান। এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব অংশে অবস্থানরত দশটি দেশ নিয়ে গঠিত এই আঞ্চলিক সংস্থাটি। আসিয়ানভুক্ত দেশ মনে রাখার টেকনিক নিয়ে এবার হাজির হয়েছি।

আসিয়ান

আসিয়ান একটি আঞ্চলিক সংস্থা, যেটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দশটি দেশ নিয়ে গঠিত। ১৯৬৭ সালে যখন আসিয়ান গঠন করা হয়, তখন এর সদস্য সংখ্যা ছিল মাত্র পাঁচটি দেশ। কিন্তু পরবর্তীতে আরো পাঁচটি দেশ এই সংস্থায় যোগ দেওয়ায় বর্তমানে আসিয়ানে সদস্য সংখ্যা দশটি। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়াভিত্তিক আঞ্চলিক সংস্থা আসিয়ানের সদর দপ্তর ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় অবস্থিত। আঞ্চলিক সহযোগিতা বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি লাভ এবং সার্বিক উন্নতি এই সংস্থাটির প্রধান লক্ষ্য।

আসিয়ানভুক্ত দেশ মনে রাখার টেকনিক

আসিয়ানভুক্ত ১০ টি দেশের নামের তালিকা–

  1. মালয়েশিয়া
  2. থাইল্যান্ড
  3. ভিয়েতনাম
  4. ফিলিপাইন
  5. ইন্দোনেশিয়া
  6. লাওস
  7. মিয়ানমার
  8. ব্রুনেই
  9. কম্বোডিয়া
  10. সিঙ্গাপুর

আসিয়ানভুক্ত দেশ মনে রাখার টেকনিক

আসিয়ানভুক্ত দেশগুলো এশিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব দিকে অবস্থানরত হওয়ায় বাংলাদেশ থেকে দেশগুলো মোটেও দূরে নয়। তবে দেশগুলোর সম্পর্কে আমরা অনেকেই খুব কম জানি। যার কারণে এশিয়ানভুক্ত দেশগুলোর নাম মনে রাখা অনেকের কাছেই কঠিন হয়ে পড়ে। আর আমরা তাদের জন্য আসিয়ানভুক্ত দেশ মনে রাখার টেকনিক নিয়ে এসেছি। নিচের টেকনিকটি ভালো করে লক্ষ্য করুন।

MTV তে FILM দেখলে BCS হবে না।

কিছু বুঝতে পারলেন? এখানে এই তিনটি শব্দ MTV, FILM ও BCS এর প্রত্যেকটি বর্ণ আসিয়ানভুক্ত দেশগুলোর প্রথম নামের বর্ণ নির্দেশ করে। নিচের ছকটি ভালো করে লক্ষ্য করুন। তাহলেই বিষয়টি সম্পূর্ণভাবে পরিষ্কার হয়ে যাবে।

আসিয়ানভুক্ত দেশ
সংকেত দেশের নাম
M মালেশিয়া
T থাইল্যান্ড
V ভিয়েতনাম
F ফিলিপাইন
I ইন্দোনেশিয়া
L লাওস
M মিয়ানমার
B ব্রুনেই
C কম্বোডিয়া
S সিঙ্গাপুর

আরো পড়ুন

আশা করছি, উপরের টেকনিকটির মাধ্যমে আপনি আর কখনোই আসিয়ানভুক্ত দেশগুলোর নাম ভুলে যাবেন না। উক্ত টেকনিকটি যেকোনো ভর্তি পরীক্ষা, সরকারি বা বেসরকারি চাকরি পরীক্ষা অথবা শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ব্যবহার করতে পারবেন। লিখিত পরীক্ষাও এশিয়ানভুক্ত দেশগুলোর নাম জানতে চাওয়া হতে পারে। টেকনিটি জানার পর আশা করছি এই প্রশ্নের উত্তর দিতে কোনো অসুবিধা হবে না।

তথ্যসূত্র উইকিপিডিয়া

Leave a comment